সাম্প্রতিক ভাবনা | মুহম্মদ জাফর ইকবাল


১.

এপ্রিলের ৬ তারিখ বিকেলে আমি শাহবাগে বসেছিলাম, সেদিন মতিঝিলে হেফাজতে ইসলামের বিশাল সমাবেশ ছিল। সরকারের হিসেবে সেটা শান্তিপূর্ন সমাবেশ হলেও শাহবাগে বসে আমার সেরকম মনে হয়নি। সেখানে এক ধরণের উত্তেজনা ছিল। হেফাজতে ইসলামের একটা দল বারবার হামলা করার চেষ্টা করছিল। সেখানে বসে আমি যখন শ্লোগান শুনছি তখন একটি মেয়ে আমার কাছে এসে বলল, “স্যার দেশে কী হচ্ছে?” আমার মনটা ভালো নেই, কিছু একটা বলে আমাকে সাহস দেন।” আমি সাধারনত যে কথাগুলো বলি তাকে সেগুলোই বললাম, সাহস দিলাম।

মেয়েটি চলে যাবার পর আমি পুরো ব্যাপারটি নিয়ে ভাবার চেষ্টা করলাম, মনে হল সত্যিই তো মেয়েটির মন খারাপ তো হতেই পারে। শত বাধা বিপত্তির মাঝেও যে আমাদের দেশটি এগিয়ে যাচ্ছে তার একটা প্রধান কারন হচ্ছে এখানে পুরুষদের পাশাপাশি নারীরাও সমান অধিকার নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। সেই নারীদের প্রতি তীব্র অসম্মান দেখানোর পরও আওয়ামী লীগ সহ সবগুলো রাজনৈতিক দল হেফাজতে ইসলামকে এতো তোয়াজ করে যাচ্ছে কেন? শাহবাগের তরুনেরা যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের কথা বলছে, তাদের উপর হেফাজতে ইসলামের এতো রাগ কেন? এই দেশে ইসলাম বিপন্ন কখনো কারো এই কথা মনে হয়নি তাহলে হঠাৎ সেই ইসলামকে হেফাজত করার প্রয়োজন হল কেন?

ধর্ম তো আমাদের জীবন থেকে খুব দূরের কিছু নয়। একটা শিশুর জন্ম হলে প্রথমেই একজন মুরুব্বী খুজে বের করা হয় যে শিশুটির কানে আজান শোনাতে পারেন। একটু বড় হলে অবধারিত ভাবে একজন হুজুরকে দায়িত্ব দেয়া হয় বাচ্চাদের কোরান শরীফ পড়ানোর জন্য আরবী শেখাতে। ছোট ছোট ছেলেরা মাথায় টুপি পড়ে আর মেয়েরা মাথায় ওড়না দিয়ে আলিফ জবর আ বে জবর বা পড়তে শিখে। জেএসসি, এসএসসি, এইচএসসি পরীক্ষার আগে ছেলেমেয়েরা আমার সাথে যোগাযোগ করে বলে “স্যার আমার পরীক্ষা, আমার জন্যে দোয়া করবেন!” আমি সাথে সাথে চোখ বন্ধ করে মনে মনে বলি, “খোদা, এই বাচ্চাটার পরীক্ষা ভালো করে দিও।” সবচেয়ে মজা হয় যখন হঠাৎ একজন উত্তেজিত হয়ে বলে, “স্যার, মনে আছে, আপনি আমার জন্য দোয়া করেছিলেন? সেই জন্যে আমি মেডিকেলে চান্স পেয়ে গেছি!” আমার দোয়ায় এতো ধার নেই তাহলে এই দেশে আরো অনেক কিছু ঘটে যেতো – আমি সেটা তাকে বোঝানোর চেষ্টা করি, সে বুঝতে চায় না। নিজের যোগ্যতায় নয় আমার দোয়ার কারনে সুযোগ পেয়ে গেছে সেটা বিশ্বাস করতেই তাঁর আগ্রহ বেশি তাই আমি তর্ক করি না!

বছর খানেক আগে আমার একজন সহকর্মী যে এক সময় আমার ছাত্র ছিল ভয়ংকর একটা এক্সিডেন্টে পড়ে সেখান থেকে ফোন করেছে। মুখোমুখি বাস দূর্ঘটনায় ষোলজন সেখানেই মারা গেছে, আহত সহকর্মীকে ঢাকায় এনে হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করার ফাঁকে আমি আমার মাকে ফোন করে বলেছি, “মা আমার একজন টিচার এক্সিডেন্ট করেছে- তাঁর জন্যে দোয়া করেন।” আমার মা তখনই তাঁর জন্যে দোয়ার করার জন্য জায়নামাজে বসে গেছেন। বড় ভাই হুমায়ূন আহমেদ মারা যাবার পর তাঁর কুলখানিতে কোরান খতম করার জন্য ছোট ছোট বাচ্চা বাচ্চা পাঁচ ছয়জন মেয়ে এসেছিল, এই টূকু বয়সে তারা কোরান হাফেজ। মাথা দুলিয়ে সুরেলা গলায় কোরান শরীফ পড়ে কয়েক ঘণ্টার মাঝে তারা কোরান শরীফ শেষ করে ফেলল। (আমি তাঁদের আমার লেখা কয়েকটা বই দিলাম, ভূতের বইটা পেয়ে তাদের কি আনন্দ!) একদিন নুহাস পল্লীতে বসে আছি তখন সাত আটজন অত্যন্ত সুদর্শন তরুন আমাকে ঘিরে ধরল ছবি তোলার জন্যে। ছবি তোলার পর জানতে পারলাম তারা সবাই একে অপরের কাজিন এবং সবাই কোরান হাফেজ। হুমায়ূন আহমেদের জন্যে কোরান খতম করে তারা তার কবরে এসেছে তার জন্যে দোয়া করার জন্যে-শুনে কেন জানি আমার চোখে পানি এসে গেল।

আমাদের কাছে এটাই হচ্ছে ধর্ম, এর মাঝে শুধু একজনের জন্যে আরেকজনের ভালোবাসা। যখন দুঃখ কষ্ট হতাশা এসে ভর করে তখন ধর্ম একটা শান্তনা নিয়ে আসে, একটা ভরসা নিয়ে আসে। মুক্তিযুদ্ধের সময় মায়েরা তাদের সন্তানের মাথায় হাত

রেখে “ফি আমানিল্লাহ” বলে যুদ্ধে পাঠিয়েছিলেন। সন্তানেরা হাতে অস্ত্র নিয়ে যুদ্ধ করতে গেছে যুদ্ধ শেষে কেউ কেউ ফিরে এসেছে সৃষ্টিকর্তা কাউকে কাউকে নিজের কাছে নিয়ে গেছেন। আমি একজন মায়ের কথা জানি যিনি তার মুক্তিযোদ্ধা সন্তানের জন্যে টানা নয়মাস রোজা রেখেছিলেন। আমার নিজের মা শুধুমাত্র সৃষ্টিকর্তার ওপর ভরসা করে যুদ্ধ বিদ্ধস্ত বাংলাদেশে বুক আমাদের ভাইবোনদের রক্ষা করেছিলেন। এই দেশের সাধারন মানুষের কাছে এটাই হচ্ছে ধর্মের রুপ, এর মাঝে শুধুমাত্র ভালোবাসা আর শান্তি, আছে বিশ্বাস এবং ভরসা।

সেই ধর্মকে হেফাজত করার জন্যে এপ্রিলের ৬ তারিখ যখন মতিঝিলের শাপলা চত্বরে কয়েক লাখ পুরুষ মানুষ জড়ো হয়েছিল তখন কেন এই দেশের মানুষের, বিশেষ করে মেয়েদের বুক কেঁপে ওঠেছিল? এই দেশের অর্ধেক মানুষ মেয়ে, সেই মেয়েদের অবমাননা করার ঘোষনা দেয়া হেফাজতে ইসলামের ধর্মের সাথে আমাদের পরিচিত শান্ত কোমল ভালোবাসা সহনশীলতা সহমর্মিতার ধর্মের মাঝে এতো পার্থক্য কেন? তাঁদের রাজনীতির সাথে কেনো সম্পর্ক নেই সেই কথাটি একশবার জোর গলায় ঘোষনা দেবার পরও বিএনপি এর বড় বড় নেতারা কেন মঞ্চে গিয়ে বসে থাকলেন? এই দেশে রং বদল করতে সবচেয়ে পারদর্শী জেনারেল এরশাদ কেন তাদের পানি খাইয়ে সেবা করার জন্যে এতো ব্যস্ত হলেন? জামাতে ইসলামী হঠাৎ করে কেন হেফাজতে ইসলামের মাঝে তাদের আদর্শ খুঁজে পেতে শুরু করল? নারায়নগঞ্জের আওয়ামী লীগ নেতা শামীম ওসমানও কেন হেফাজতে ইসলামকে সমর্থন জানিয়ে রাখলেন?

২.

শাহবাগের তরুনেরা যখন যুদ্ধাপরাধীদের সঠিক বিচারের দাবিতে একটা বিস্ময়কর জাগরনের জন্ম দিয়েছিল তখন হঠাৎ করে তাদের সবাইকে ঢালাওভাবে নাস্তিক দাবী করে একটা প্রচার শুরু হল। একজন মানুষ যদি শুধু মাত্র নিজে থেকে নিজেকে নাস্তিক হিসেবে ঘোষনা দেয় তাহলে হয়তো তাকে নাস্তিক বলা যায় অন্যদের পক্ষে কোনোভাবেই একজনকে নাস্তিক বলা সম্ভব নয়। একজন মানুষকে নানাভাবে গালাগালি করা এক কথা কিন্তু তাকে নাস্তিক বা মুরতাদ বলা সম্পূর্ন অন্য একটি ব্যাপার। এটি আসলে মৃত্যুদন্ড ঘোষনা করা, ধর্মান্ধ মানুষ এই ঘোষনাটি মেনে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করেছে এরকম উদাহারন আমাদের চোখের সামনেই আছে। কাজেই একজন মানুষ বা একদল মানুষকে নাস্তিক ঘোষনা দেয়া আসলে তাঁকে প্রানের ঝুকিতে ফেলে দেয়া। রাজনৈতিক নেতারা সেটা নিয়ে দুর্ভাবনা করবেন কিংবা সত্যি সত্যি তাদের অপবাদের কারনে কেউ একজন খুন হয়ে গেলে তারা খুব অপরাধবোধে ভুগবেন সেটা কেউ বিশ্বাস করেনা। সত্যি কথা বলতে কী ব্যাপারটা সম্পূর্ন অন্যরকম, একজন মানুষের মৃত্যু তাদের কাছে স্বজন হারা মানুষের বুক ভাঙ্গা হাহাকার নয়, সেটি রাজনীতির জন্যে গুরুত্বপূর্ন একটি “লাশ”।. কে কতো দক্ষভাবে সেই লাশটা নিজের কাজে ব্যবহার করতে পারবে, কতো ব্যাপক উন্মাদনা তৈরী করতে পারবে সেটাই হচ্ছে গুরুত্বপূর্ন ব্যাপার। তাই খালেদা জিয়া প্রকাশ্য সভায় জনতার কাছে লাশ চাইতে দ্বিধা করেননি।

“আমার দেশ” পত্রিকার সম্পাদক মাহমুদুর রহমান যখন আনুষ্ঠানিকভাবে শাহবাগের তরুনদের নাস্তিক ঘোষনা দিয়ে প্রচারনা শুরু করেছিলেন তখন তার ভিতরে কোনো অপরাধবোধের জন্ম হয়েছিল বলে আমার মনে হয় না। আমি মোটামুটি লিখে দিতে পারি শাহবাগের সব তরুন নাস্তিক সেটা নিজেরাও বিশ্বাস করেন না কিন্তু সেটা প্রচার করতে তারা বিন্দুমাত্র দ্বিধা বোধ করেন না। সেই প্রচারনার কারনে যে উন্মাদনা তৈরী হয়েছিল এবং তাঁর কারনে যে কয়টি মানুষ প্রাণ হারিয়েছিল তার জন্যে সম্পাদক মহোদয়ের বুকের ভিতর কোনো অনুশোচনা কিনা সেটি আমার খুব জানতে ইচ্ছা করে।

সম্ভবত হয়নি- কারন আমার দেশের সম্পাদক মহোদয়কে অত্যন্ত সঙ্গত কারনে গ্রেফতার করা হয়েছিল এবং এই দেশের পনেরটি গুরুত্বপূর্ন পত্রিকার ততোধিক গুরুত্বপূর্ন সম্পাদক প্রকাশ্য বিবৃতি দিয়ে তার পাশে এসে দাড়িয়েছিলেন। মোটামুটি একই সময়ে প্রায় একই ধরনের কারন দেখিয়ে চারজন ব্লগারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল, পনেরোজন সম্পাদক তখন একত্র হয়ে তাদের জন্যে মুখ ফুটে কোনো কথা বলেননি। ভাগ্যিস গোলাম আজম কিংবা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর মত যুদ্ধাপরাধীদের কোনো পত্রিকার সাথে সম্পর্ক নেই, যদি থাকতো তাহলে এই পনেরোজন সম্পাদক হয়তো তাদের পক্ষেও বিবৃতি দিতেন। “আমার দেশ” এর সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের তীব্র সাম্প্রদায়িক ধর্মান্ধ প্রচারনার কারনে এই দেশে অনেক প্রাণ ঝড়ে গেছে, তিনি নিজের হাতে কোনো খুন হয়তো করেননি কিন্তু তার কারনে মানুষের প্রাণ বিপন্ন হয়েছে। স্বাধীনতাবিরোধী, যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষের এরকম একজন মানুষের জন্যে এই দেশের পনেরোজন সম্পাদক বিবৃতি  দিতে পারেন সেই আমি নিজের চোখে না দেখলে বিশ্বাস করতাম না। ঘটনাটি আমাকে গভীরভাবে ব্যাথিত করেছে এবং আমি জানি এই দেশের তরুন সমাজকে প্রচন্ডভাবে ক্রুদ্ধ করেছে। এই গুরুত্বপূর্ন পত্রিকাগুলোই যেহেতু এই দেশের মানুষের কাছে সব খবর পৌছে দেই তাই নূতন প্রজন্মের ক্ষোভের কথাটি হয়তো দেশের মানুষ কোনোদিন জানতেও পারবেনা।

যাই হোক, রাজনৈতিক মানুষের কাছে হয়তো আমরা নৈতিকতা আশা করা ছেড়ে দিয়েছি কিন্তু ধার্মিক মানুষের কাছে তো আশা করতেই পারি। আমাদের মত সাধারণ মানুষ হেফাজতে ইসলামের নেতৃবৃন্দের মত ইসলামের আলেম বা চিন্তাবিদ না হতে পারে, কিন্তু তাই বলে আমাদের মত মানুষেরা যে কোরান হাদীস পড়তে পারেনা তা নয়। (হেফাজত ইসলামের ব্লগের উপর খুব রাগ কিন্তু তাঁরা কি জানে ইসলামের উপর খুব চমৎকার ব্লগ আছে?) ইসলাম ধর্মের ধর্ম গ্রন্থে তো খুব পরিষ্কার ভাবে লেখা আছে কোনো মানুষকে মিথ্যা অপবাদ দেওয়া খুব বড় অপরাধ, পরকালে তাঁর জন্যে খুব কঠোর শাস্তির কথা বলা আছে। তাহলে রাজনৈতিক দলগুলোর মতো কিংবা  “আমার দেশ” পত্রিকার মতো হেফাজতে ইসলাম কেমন করে ঢালাওভাবে শাহবাগের সকল তরুন তরুনীদের নাস্তিক হিসেবে ঘোষনা দিতে পারল? মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের মানুষ হলেই সে জামাতে ইসলামের বিপক্ষের একজন মানুষ হবে, কিন্তু জামাত্তে ইসলামীর বিপক্ষে হলেই সে ইসলামের বিপক্ষে হবে এই সরলীকরন কবে থেকে শুরু হল?

৩.

মে মাসের পাঁচ তারিখে হেফাজতে ইসলাম ঢাকা অবরোধের ডাক দিয়েছিল। তাদের সাথে রাজনীতির কোনো সম্পর্ক নেই কথাটি অনেকবার বলার পরও খালেদা জিয়ে অবরোধের সাথে মিলিয়ে আটচল্লিশ আলটিমেটাম দিলেন। হেফাজতে ইসলামের কর্মীদের কী পরিকল্পনা ছিল তাদের সাথে বিএনপি বা জামাতের কী যোগাযোগ ছিল আমরা কিছু জানিনা কিন্তু মে মাসের পাঁচ তারিখ ভোর চারটায় সময় আমি আমার ফোনে একটি এসএমএস পেলাম। ইংরেজী অক্ষরে বাংলায় লেখা এসএমএস পেলাম। ইংরেজী অক্ষরে বাংলায় লেখা এসএমএস আমি হুবহু তুলে দিচ্ছিঃ

“এই নাস্তিক জাফর ইকবাল, তোদের মৃত্যুর ঘন্টা বাজছে। হতে পারে আজ রাতই তোদের শেষ রাত। কাল হয়তো তোরা আর পৃথিবীতে থাকতে পারবিনা কারন এই জমানার শ্রেষ্ঠ শায়খুল হাদিস আল্লামা আহমদ শফির ডাকে সারা বাংলাদেশের তোহিদি জনতা মাঠে নেমে এসেছে। সেই সব তোহিদি জনতা প্রধান-মন্ত্রী সহ তোদের সব ধরে ধরে জবাই করে ছাড়বে। আমার আল্লাহকে নিয়ে বিশ্বনবীকে নিয়ে আলীমকে নিয়ে কোরানের হাফেজদের নিয়ে কট্যুক্তি করার ভয়ংকর পরিনাম কী তা আগামী কালকেই হাড়ে হাড়ে টের পাবি তোরা।”

যে কোনো হিসেবে এটি একটি অত্যন্ত ভয়ংকর একটি এসএমএস (এটি পাবার পর আমার সম্ভবত পুলিশকে জানানো উচিত ছিল কিন্তু এসব খবর সংবাদপত্রে চলে যায়, আপনজনেরা ভয় পায় আমি তাই চেপে যাবার চেষ্টা করি।) তবে এই এসএমএসটি পড়লে ৫ মে এর ঘটনা সম্পর্কে অনেক কিছু পরিস্কার হয়ে যায়। সরকার যদিও এতাকে একটা “শান্তিপূর্ন” “নিয়মতান্ত্রিক” অবরোধ এবং সমাবেশ ভেবে তাদের ঢাকা শহরে আসতে দিয়েছিল কিন্তু তাদের কর্মীদের অন্য পরিকল্পনা ছিল। হেফাজতে ইসলামের কর্মীদের তাদের নেতাদের উপর অটল বিশ্বাস এবং তাঁর নেতৃত্বে তাঁরা আমাদের মত মানুষদের জবাই করে ফেলাটাকে তাদের ইমানী দায়িত্ব হিসেবে মনে করে। মে মাসের ৫ তারিখে খালেদা জিয়া হেফাজতে ইসলামকে সব রকম সাহায্য করার আহবান জানিয়ছিলেন। তার আহবানে শহরে একটা চরম বিশৃঙ্খলা ঘটিয়ে দেয়া হলে শেষ পর্যন্ত কী হতো আমরা জানিনা।

সেদিন ঢাকা শহরে যে তান্ডব হয়েছিল দেশের মানুষ তা অনেকদিন মনে রাখবে। ইসলামকে হেফাজত করার দায়িত্ব নিয়ে এক স্থে এত কোরান শরীফ সম্ভবত পৃথিবীর আর কোথাও কখনো পোড়ানো হয়নি-এবং সম্ভবত আর কখনো হবেও না। পৃথিবীর যে কোনো প্রান্তে যদি কখনো কোরান শরীফের অবমাননা করা হয় বাংলাদেশে তার বিরুদ্ধে বিশাল বিক্ষোভ শুরু হয়। এই প্রথমবার ইসলাম পন্থী দলগুলো একেবারে নিঃশব্দে পবিত্র কোরান শরীফের এতো বড় অবমাননাটি মেনে নিয়েছে, কেউ টু শব্দটি করেনি। মে মাসের ৫ তারিখের মতো এতো বড় নিষ্ঠুরতা এবং ধ্বংসযজ্ঞ আমরা আগে কখনো দেখছি বলে মনে করতে পারিনা আর এর সবকিছু ঘটানো হয়েছে ইসলামকে রক্ষা করার নামে, এর থেকে বড় পরিহাস আর কী হতে পারে?

৪.

আমাদের চারপাশে যা কিছু ঘটছে সেখানে মন খারাপ হওয়ার মতো কিংবা হতাশ হওয়ার মত অনেক কিছু ঘটছে কিন্তু তারপরেও আমি মন খারাপ করছি না কিংবা হতাশ হচ্ছি না শুধু একটি কারনে, সেটি হচ্ছে এখন আমি নিশ্চিতভাবে জানতে পেরেছি এই দেশে একটি অত্যন্ত দেশপ্রেমিক আধুনিক লেখাপড়া জানা তরুন সমাজ আছে। দেশ যদি বিপদে পড়ে যায় তাহলে তারা সংঘবদ্ধ হয়ে দেশের পাশে দাড়াতে এতটুকু দ্বিধা করবেনা। আমি এক সময় ভাবতাম আমাদের সংবাদ মাধ্যম এই দেশের একটি বড় শক্তি কিন্তু দেশের পনেরোজন সম্পাদকের সাম্প্রতিক কাজকর্ম দেখে আমার সেই ধারনায় চোট খেয়েছে। তারা অনেক জ্ঞানী গুনী বিচক্ষন যুক্তিবাদী সচেতন এবং নিরপেক্ষ বুদ্ধিজীবি। কিন্তু যেদিন আমি আবিষ্কার করেছি ন্যায় এবং অন্যায়ের মাঝখানেও কেউ কেউ নিরপেক্ষ হতে শুরু করেছেন সেদিন থেকে এই শব্দটিকে আমি সন্দেহ করতে শুরু করেছি।

ঠিক কি কারন জানিনা জ্ঞানী গুনী বিচক্ষন যুক্তিবাদী নিরপেক্ষ বুদ্ধিজীবি থেকে কমবয়সী আবেগপ্রবন যুক্তিহীন কিন্তু তীব্রভাবে দেশপ্রেমিক তরুনদের আমি বেশী বিশ্বাস করি, তাদের উপর আমি অনেক বেশী ভরসা করি।

২১ জুন ২০১৩

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s